বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতির সাধারন ত্রুটি

বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতির সাধারন ত্রুটি
বাসা-বাড়ি, অফিস, কলকারখানা ইত্যাদি স্থানে নিত্যপ্রয়ােজনীয় যেসব যন্ত্রপাতি ব্যবহার করা হয় সেগুলাের প্রায় ।
সবই বিদ্যুৎ এনার্জি চালিত। এদের বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতি বলে। এগুলাের অপারেশন কার্যক্রম পরিচালিত হয় হিটিং
এলিমেন্ট বা বৈদ্যুতিক মটর দিয়ে। এ সকল যন্ত্রপাতির মধ্যে বহুল ব্যবহৃত উল্লেখযােগ্য কয়েকটি হল ইলেকট্রিক
ইন্দ্রি বা আয়রন, ইলেকট্রিক কেটলি, ইলেকট্রিক হিটার, বৈদ্যুতিক কুকার, রেফ্রিজারেটর, ব্লেন্ডার, ওয়াশিং মেশিন।
ইত্যাদি। এসব যন্ত্রপাতি ব্যবহারের সময় যান্ত্রিক ও বৈদ্যুতিক উভয় ধরনের ত্রুটিই দেখা দেয়। সাধারণ বৈদ্যুতিক
ত্রুটিগুলাের মধ্যে ওপেন সার্কিট, শর্ট সার্কিট ও গ্রাউন্ড বা আর্থ তুটি উল্লেখযােগ্য। 

 

বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতির সাধারণ ত্রুটির তালিকা : বাসা-বাড়ি, অফিস, দোকানে দৈনন্দিন ব্যবহৃত বৈদ্যুতিক
যন্ত্রপাতিগুলােতে সাধারণত যান্ত্রিক ও বৈদ্যুতিক বা ইলেকট্রো-মেকানিক্যাল ত্রুটি দেখা দেয়। এর মধ্যে সাধারণভাবে
বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতি বা হাউস হােল্ড অ্যাপ্লায়েন্স এ তিন ধরনের বৈদ্যুতিক ত্রুটি দেখা দেয়। সেগুলাে হল-
১. ওপেন সার্কিট ক্রুটি,
২. শর্ট সার্কিট ত্রুটি এবং
৩. গ্রাউন্ড বা আর্থ ত্রুটি

 

শর্ট সার্কিট জুটির লক্ষণ : বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতির হিটিং এলিমেন্ট বা কারেন্টবাহী পরিবাহীর অংশ বিশেষ একত্র
হওয়া বা সাপ্লাই কর্ডের ফেজ ও নিউট্রাল একত্র হওয়াকে শর্ট সার্কিট বলে। এতে কারেন্টের মান বেড়ে যায় ও
যন্ত্রপাতির ক্ষতি হয় এবং সাবধান না হলে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। এ জুটির লক্ষণগুলাে নিম্নরূপ
১. সুইচ অন করার সাথে সাথেই ফিউজ পুড়ে যায়।
২. হিটিং এলিমেন্ট এর অংশ বিশেষ শর্ট হলে তা কাজ করবে না বা তাপ উৎপন্ন করবে না। |
৩. প্যারালালে সংযুক্ত কোনাে এলিমেন্ট দুটির টার্মিনাল শর্ট হলে সেটি কাজ করবে না, কিন্তু অন্যগুলাে কাজ
করবে। ফলে কম তাপ উৎপন্ন হবে।।
৪. কারেন্টবাহী কন্ডাক্টর বা হিটিং অ্যালিমেন্ট-এর প্যারালালে সংযুক্ত নির্দেশক বাতির প্রান্তসমূহ শর্ট হলে।
বাতি জ্বলবে না। 
৫. মোটরের কোন কয়েল শর্ট হলে মোটর গোঁ গোঁ শব্দ করে চলে। 
শর্ট সার্কিট জুটি নির্ণয়ের পদ্ধতি : শর্ট সার্কিট এটি নির্ণয়ে নিয়ন টেস্টার, টেস্ট বাতি, অ্যাভােমিটার প্রয়ােজন হ
যেভাবে শর্ট সার্কিট ত্রুটি নির্ণয় করা যায় তা হল
১. বেশীরভাগ ত্রুটি পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে নির্ণয় করা যায়।
২. সাপ্লাই কর্ড শর্ট হলে এভোমিটার দিয়ে পরীক্ষা করে জানা যায়।
৩. যন্ত্রের ফেজ নিউট্রাল শর্ট থাকলে সিরিজ বাতির পরীক্ষায় তা জানা যায়।
সাপ্লাই কর্ডের শর্ট সার্কিট টেস্ট করতে সিরিজে টেস্ট ল্যাম্পের নিচের চিত্র অনুযায়ী সংযােগ করতে হবে। এ
সাপ্লাই দেয়ার পর যদি টেস্ট ল্যাম্পটি উজ্জল ভাবে জ্বলে উঠে তবে বুঝতে হবে কর্ডে শর্ট সার্কিট ত্রুটি আছে। কিন্তু যদি
টেস্ট বাতি পূর্ণ উজ্জ্বলভাবে না জ্বলে তবে বুঝতে হবে কর্ডে শর্ট সার্কিটক্রটি নেই। 

 

ওপেন সার্কিট ত্রুটির লক্ষণ : বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতির হিটিং এলিমেন্ট ওপেন, সাপ্লাই কর্ড ওপেন, ফেজ তা
নদ্রাল তার ওপেন হলে কারেন্ট প্রবাহিত হয় না এবং যন্ত্র কাজ করে না । যন্ত্রের এরূপ তুটিকে ওপেন স
ত্রুটি বলে।।
এ জুটির লক্ষণ গুলো নিম্নরূপ
১. হিটিং এলিমেন্ট গরম হবে না।
২. ফিউজ, সাপ্লাই কর্ড, ফেজ তার বা নিউট্রাল পুড়ে ওপেন হলে কারেন্ট প্রবাহিত হবে না। ফলে যন্ত্র।
করবে না।
৩. সংযোগ কোন স্থান ওপেন হলে।
ওপেন সার্কিট টি নির্ণয়ের পদ্ধতি : ওপেন সার্কিট ত্রুটি নির্ণয়ে টেস্ট বাতি, অ্যাভােমিটার প্রয়ােজন হয়। যেভ ওপেন
সার্কিট ত্রুটি নির্ণয় করা যায় তা হল
১. ফিউজ খুলে পর্যবেক্ষণের দ্বারা।। 
২. মিটার দিয়ে সুইচের কন্ট্যাক্ট পরীক্ষা করে।
৩. মেগা বা এভোমিটার দিয়ে তারের (কর্ডের কন্টিনিউটি পরীক্ষা করে।
৪. মিটার দিয়ে বা টেস্ট বাতি দিয়ে হিটিং এলিমেন্ট এর কন্টিনিউটি পরীক্ষা করে।
মেগার বা অ্যাভােমিটার বা টেস্ট বাতি দিয়ে খুব সহজেই কন্টিনিউটি পরীক্ষার মাধ্যমে ওপেন সার্কিট ত্রুটি
নির্ণয় করা যায়।

 

গ্রাউন্ড ত্রুটির লক্ষণ : বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতির হিটিং এলিমেন্ট বা কয়েলের কোন অংশ বডিতে লাগলে, ইনসুলেশন
নষ্ট হয়ে পরিবাহী তার বডিতে লাগলে গ্রাউন্ড তুটি ঘটে। এতে যন্ত্রের বডির স্পর্শে মানুষ বৈদ্যুতিক শক পায়। এ
ধরনের জুটিকে গ্রাউন্ড ত্রুটি বলে।।
লক্ষণ সমূহ নিম্নরূপ-
১. হিটিং এলিমেন্ট বা কয়েল যন্ত্রের ধাতব অংশে লাগলে।
২. টার্মিনাল কানেক্টর ভেঙে সুইচ বা যন্ত্রের বডিতে লাগলে।।
৩. গ্রাউন্ড তুটিতে লিকেজ কারেন্ট প্রবাহে ফিউজ পুড়ে যেতে পারে।

 

গ্রাউন্ড ত্রুটি নির্ণয়ের পদ্ধতি : মেগার, টেস্ট বাতি, নিয়ন টেস্টার দিয়ে গ্রাউন্ড ত্রুটি নির্ণয় করা যায়। টেস্ট বাতির এক
প্রান্ত অর্থে এবং অন্য প্রান্ত ত্রুটি যুক্ত যন্ত্রের বডিতে লাগালে বাতি জ্বলবে। যনেত্রর। বডিতে টেস্টার ধরলে টেস্টারও মিটমিট
করে জ্বলবে। এভাবে খুব সহজেই গ্রাউন্ড ত্রুটি নির্ণয় করা যায়।

You may also like...

Leave a Reply